সিডনিতে শেতাঙ্গ স্বামী কর্তৃক বাঙ্গালী বধু খুন

প্রকাশিত: অক্টোবর ১৬, ২০২০

রিপোর্ট: মোশারফ হোসেন নির্জন, অস্ট্রেলিয়া থেকে: সাধারণত নারীর জীবনে আর্শীবাদ হয়েই আসেন স্বামী; তবে ব্যাতিক্রম যে হয় না তা কিন্তু নয়। পাষন্ড স্বামী কর্তৃক পাশবিক নির্যাতনের এমন ঘটনা অস্ট্রেলিয়ায়। গেলো বছর বাংলা কমিউনিটিতে স্বামী কর্তৃক স্ত্রী হ্যতার পর আবারো একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি । তবে এবার ঘাতক স্বামী কোন বাংঙ্গালী নয়, পুরোদস্তর শেতাঙ্গ।তদন্তের খাতিরে তার নাগরিক পরিচয় এখনো প্রকাশ করা হয়নি, যদিও।

জানা যায়, ওয়েটওয়ার্থভিলের লেন স্ট্রিটের অ্যাপার্টমেন্টগুলির একটিতে সাবা হাফিজ (২৩) ও তার স্বামী অ্যাডাম কুরেটন (24) বাস করতেন। বুধবার ভোরে ভোরে নির্দয়ভাবে নিজ স্ত্রীকে প্রহার শুরু করেন অ্যাডাম, সাবার আত্নচিৎকারে ঘুম ভাঙ্গে প্রতিবেশীদের। অনেকেই ছুটে আসেন বাচাঁতে, কিন্তু ততক্ষণে বড্ড দেরী হয়ে গেছে; পাষন্ড স্বামীর বেদম পেটানোতে অচেতন বধূ মেঝেতে লুটিয়ে পড়ে। পড়শীর দেয়া কলে পুলিশ আসে এবং প্রাথমিক চিকিৎসার আওতায় এনে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা করে আহতকে বাচাতে; কিন্ত, না ফেরার দেশে চলে যান হতভাগা সাবা। অন্যদিকে সবার চোখ ফাকি দিয়ে সটকে পড়েন খুনী স্বামী।

এই ঘটনার তদন্তকারী পুলিশ সাইমন গ্লাসার বলেন, আমরা মনি করি সাবা হাফিজকে নিশৃংসভাবে হামলা করা হয়েছে; তবে কোনও অস্ত্র ব্যবহার করা হয়েছে কিনা তা এখনো নিশ্চিত করা যায়নি।তিনি আরো বলেন,”এটি একটি করুণ পরিণতি – আমরা এটিকে অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে নিচ্ছি এবং আমরা এই হত্যার পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে স্ট্রাইক ফোর্স প্রতিষ্ঠা করেছি,”

অন্যদিকে সন্তান হারানো বাবা সোনাহ হাফিজ জানান, মাত্র কয়েক বছর আগে তার মেয়ের সাথে কুর্তনের বিয়ে হয়, তবে জামাই-শ্বশুরের খুব বেশী সুসম্পর্ক বা সাক্ষাত ছিলো না।

পলাতক স্বামীর খোজে চিরুনী অভিযানের পর আজ সকাল ১১ টার দিকে মিঃ মারুব্রার আস্তোরিয়া আদালতে গ্রেপ্তার হয় খুনী আডাম। মারৌবড়া থানায় রেখে পুলিশ অনুসন্ধানের কাজ অব্যাহত রেখেছেন।নিষ্চয় খুনীকে বড় ধরনের শাস্তি ও আর্থিক জরিমানার মধ্যদিয়ে যেতে হবে বলে মত প্রকাশ করেন পুলিশ।