একসাথে গাঁজা খেলে সম্পর্ক দীর্ঘস্থায়ী হয়

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৪, ২০১৯

গবেষণা বলছে, যেসব কাপল একসঙ্গে গাঁজা খায় তাদের রিলেশনশিপ বেশিদিন স্থায়ী হয়। যদিও এ কথা সত্যি যে এলকোহল এবং গাঁজা বিশৃঙ্খলার প্রবণতা বাড়ায়। এ গবেষণায় দেখা যায় যে বৈবাহিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে ক্যানাবিস ব্যবহারের প্রভাব ভিন্ন ছিলো।

জর্ডান টিশলার, যিনি ২0 বছরেরও বেশি সময় ধরে ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ হিসাবে কাজ করেছেন বলেন, “আমি বলব যে গাঁজা ঘনিষ্ঠ সঙ্গীরা সহিংসতার ঘটনা হ্রাস করবে।”

ক্যানাবিস এবং বিশৃঙ্খলার মধ্যকার অতীত গবেষণাগুলো মানসিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থদের মাধ্যমে করা হয়েছে। ২৬৯ জন পুরুষের মাধ্যমে করা ২০০৮ সালের এক গবেষণায় দেখা যায়, এলকোহলের ব্যবহার এবং অপব্যবহারের ফলে এন্টিসোস্যাল ব্যাক্তিত্বের ব্যাধি গুলো লক্ষণীয় এবং ইতিবাচক হিসেবে সম্পর্ক যুক্ত। যদিও গার্হস্থ্য সহিংসতার জন্য গ্রেফতারের ইতিহাসও রয়েছে।

আরেকটি গবেষণা জানাচ্ছে গাঁজা ব্যবহার এলকোহল বা কোকেনের চেয়ে ভয়াবহ হতে পারে। এর ফলে অতীতে মানসিক হাসপাতালে ভর্তির রেকর্ডও রয়েছে। বৈবাহিক বিষয় গুলোর উপরে এলকোহল, কোকেন, গাঁজার ব্যবহার কতটুকু প্রভাব ফেলে এ বিষয়ে গবেষণা বলছে গাঁজা সেবনকারী কাপলরা পরস্পরের প্রতি মানসিক ভাবে নির্ভরশীল হয় যা তাদের আক্রমণাত্মক আচরণের সম্ভাবনাকে হ্রাস করে ফেলে।

এই গবেষণার সাথে জড়িত আরেক বিজ্ঞানী বেঞ্জামিন ক্রসেন বলেন, গাঁজা সেবনকারী দম্পতিরা দীর্ঘস্থায়ী চাপ এবং উদ্বেগের কারণে ঘনিষ্ঠ অংশীদার হয় যা তাদের সহিংস মনোভাব দূর করে।

ট্রিশলার বলেন, উদ্বেগ বিবর্ণ করার জন্য গাঁজা সেবন দীর্ঘস্থায়ী হতে হবে না, অকেশনাল সেবনও ইতিবাচক ফলাফল দিতে পারে। প্যারানয়িয়া এবং উদ্বেগেকে উত্তেজিত করার জন্য গাঁজা খ্যাতি অর্জন করে কিন্তু এটি ডোজের উপর নির্ভরশীল। ডাক্তারের দ্বারা নির্ধারিত THC এর নিম্ন ডোজ গুলো বিপরীত প্রতিক্রিয়া দেখাতে পারে৷

তথাপি দীর্ঘস্থায়ী সংহাত বা আগ্রাসন বন্ধ করার জন্য গাঁজা সহজ মাধ্যম এমন মনে করার কোন কারণ নেই। কারণ এই গবেষণাটি কয়েকটি গোত্রের উপর চালানো এবং এখনো চলমান।

ট্রিশলার আরও বলেন, নিম্ন ডোজ গুলো বৈবাহিক জীবনে শারীরিক সম্পর্ক, অন্তরঙ্গতা এবং সর্বোপরি বৈবাহিক বন্ধনকে দৃঢ় করে। দম্পতিদের একসাথে গাঁজা সেবন তাদের মধ্যে বোঝাপড়াটা বাড়ায়, যা তাদের সম্পর্ককে আরো দীর্ঘস্থায়ী করতে সাহায্য করে।