যৌতুক মামলায় পিরোজপুর জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক গ্রেপ্তার

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২০

প্রথম স্ত্রীর করা যৌতুক ও নির্যাতন মামলায় পিরোজপুর জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক এম ডি বদিউজ্জামান শেখ রুবেল কে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সকালে পিরোজপুরের হুলারহাট লঞ্চঘাট থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত এম ডি বদিউজ্জামান শেখ রুবেল (৩২) পিরোজপুর জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ও পিরোজপুর শহরের মধ্যরাস্তা এলাকার আসলাম শেখের পুত্র। রুবেলের ১ম স্ত্রী শেখ সাজিয়া আফরিন শাম্মী জানান, ২০১২ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারী পারিবারিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমেই তার সাথে বর্তমান জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক এম ডি বদিউজ্জামান শেখ রুবেলের বিবাহ হয়। বর্তমানে তাদের সংসারে দেড় বছর বয়সী একটি পুত্র আছে। বিয়ের পর থেকেই যৌতুক হিসেবে বিভিন্ন সময় নগদ টাকা, আসবারপত্র ও মোটরসাইকেল তার স্বামীকে দিয়েছে তার পরিবারের লোকজন। কিন্তু বেশ কিছুদিন যাবত ধরে তার স্বামী এম ডি বদিউজ্জামান শেখ রুবেল ও তার মা জাকিয়া বেগম তার উপর ২৫ লক্ষ টাকা যৌতুক দাবী করে তার উপর নানা চাপ দিতে থাকে।

যৌতুকের জন্য টাকা না দিতে পারায় তাকে বিভিন্ন সময় শারীরিক ও মানষিক নির্যাতন শুরু করে তারা। এই নির্যাতনের পরে যৌতুকের জন্য তাকে তার বাবার বাড়িতে পাঠিয়ে দেয় স্বামী ও শ্বশুর-শাশুরী। এ বিষয়ে পারিবারিক ভাবে সমযোতার চেষ্টা করলেও তার স্বামী ও শ্বশুরবাড়ীর লোকজন সেটা না মেনে নেওয়ায় এ বছরের ১৫ জুলাই তিনি নিজে বাদী হয়ে খুলনা আদালতে তার স্বামী ও শ্বশুর-শাশুরীকে আসামী করে যৌতুক ও নির্যাতন মামলা দায়ের করেন।

শেখ সাজিয়া আফরিন শাম্মী আরো জানান, তিনি পরে জানাতে পারেন তার স্বামী এম ডি বদিউজ্জামান শেখ রুবেল তিনি স্ত্রী থাকা অবস্থায় অধিক যৌতুকের লোভে এ বছরের শুরুর দিকে তার অনুমতি না নিয়ে যশোর এলাকার একটি মেয়েকে বিয়ে করেছেন। জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক হওয়ার কারণে এ বিষয়ে কিছু বলতে গেলে তিনিসহ তার বাবার পরিবারের লোকজনকে রুবেল নানা ভাবে হুমকি দিতো। পিরোজপুর সদর থানার ওসি মুহা, নুরুল ইসলাম বাদল জানান, স্ত্রীর করা মামলায় গ্রেপ্তারী পরোয়ানা থাকায় জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক এম ডি বদিউজ্জামান শেখ রুবেল কে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ বিষয়ে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে