ঢাকা-৫ ও নওগাঁ-৬ উপনির্বাচনের তফসির ঘোষণা

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৩, ২০২০

ঢাকা-৫ ও নওগাঁ-৬ আসনের উপ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ১৭ অক্টোবর এ দুই আসনে ইলেক্টোনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএমে) ভোটগ্রহণ করবে সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানটি। বৃহস্পতিবার (৩ সেপ্টেম্বর) নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে ইসির সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর তফসিল ঘোষণা করে এসব তথ্য জানান। সচিব জানান, দুটি আসনে আগ্রহী প্রার্থীরা ১৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারবেন। ২০ সেপ্টেম্বর বাছাইয়ের পর ২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রার্থিতা প্রত্যাহার করা যাবে। সব শেষে ভোট হবে ১৭ অক্টোবর। ভোটগ্রহণ চলবে সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত। তিনি বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে ভোট নেওয়া হবে। ভোটের প্রচার ও যারা অংশ নেবে স্বাস্থ্য বিধি মানতে নির্দেশনা জারি করা হবে। গত ৬ মে হাবিবুর রহমান মোল্লার মৃত্যুতে ঢাকা-৫ আসন এবং ২৮ জুলাই মো. ইসরাফিল আলমের মৃত্যুতে নওগাঁ-৬ আসন শূন্য ঘোষণা করা হয়। করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে আসন শুন্য হওয়ার পর প্রথম ৯০ দিনে ভোট করা সম্ভব হয় নি। দ্বিতীয় ৯০ দিনের মধ্য ভোট হচ্ছে ঢাকা-৫ শূন্য আসনের। ঢাকা আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তাকে ঢাকা-৫ এবং নওগাঁ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তাকে নওগাঁ-৬ উপ নির্বাচনর রিটার্নিং কর্মকর্তা করা হয়েছে।

সংবিধানের ১২৩ অনুচ্ছেদের ৪ দফায় বলা হয়েছে- সংসদের কোনো সদস্যপদ শূন্য হলে তার ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন করতে হবে। তবে কোনো দৈব-দূর্বিপাকের কারণে এ নির্ধারিত মেয়াদের মধ্যে নির্বাচন সম্ভব না হলে পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে ভোট করতে হবে। এর আগে বগুড়া-১ ও যশোর-৬ আসনেও প্রথম ৯০ দিনে না পারায় পরের ৯০ দিনে উপ নির্বাচন করেছিল ইসি। গত ১৪ জুলাই ওই দুটি আসনে উপনির্বাচনে যশোর-৬ আসনে ভোট পড়ে ৬৩.৫ শতাংশ। আর বগুড়া-১ আসনে ভোট দিয়েছেন ৪৫.৫ শতাংশ ভোটার। মার্চের শুরুতে দেশে করোনাভাইরাসের প্রকোপ শুরুর পর ২১ মার্চ তিনটি উপ নির্বাচন হয়। তখন গাইবান্ধা-৩ ও বাগেরহাট-৪ আসনে উপনির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি ছিল যথাক্রমে ৬০ ও ৬৯ শতাংশ। অবশ্য ঢাকা-১০ আসনে ইভিএমে মাত্র ৫% ভোট পড়ে।

ঢাকা -১৮ ও সিরাজগঞ্জ -১ নিয়ে ইসির সচিব বলেন, ঢাকা -১৮ আসনে নির্বাচন প্রথম ৯০ দিনে ভোট করা সম্ভব হয়নি। এ কারণে কমিশন আরো ৯০ দিন সময় দিয়েছে। সিরাজগঞ্জ -১ বন্যার করণে আমরা ভোট করতে পারছিনা তবে পরিস্থিতি ভাল কমিশন ভোট করবে। স্থানীয় সরকার নির্বাচন নিয়ে মো. আলমগীর বলেন, সেপ্টেম্বর শেষে তফসিল দিয়ে স্থানীয় সরকারের ভোট আক্টোবর থেকে শুরু করা হবে। বাদপরা নির্বাচনগুলো আগে করা হবে। পরবর্তিতে পর্যায়ক্রমে সব নির্বাচন করা হবে।জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে ইসি সচিব বলেন, একজন নাগরিকের ভোটার তালিকা অন্তভ’ক্ত করার পরে যে তথ্য ভান্ডারে তথ্য গুলো সংরক্ষণ করা হয়। ঐ তথ্য ভান্ডারটি নিভুল। প্রায় শতভাগ (৯৯.৯৯) সঠিক। জেকেজি হেলকেয়ারের চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা চৌধুরীর দুটি জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে সচিব বলেন, তার বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। তদন্তর পর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মিথ্যা তথ্য দিয়ে দ্বৈত ভোটর হওযার অপরাধে ভোটার তালিকা আইন অনুযায়ি তার বিরুদ্ধে এই মামলা করা হয়েছে। তদন্তর পর জানা যাবে কে জড়িত কে জড়িত না। জড়িত থাকলে সে যত বড় ভিআইপি হোক আমরা ব্যবস্থা নিব।