রাজাপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়’র সম্পত্তি পুণরুদ্দারে অবস্থান কর্মসূচি পালন

প্রকাশিত: জুলাই ৩০, ২০২০

আবু নাঈম, ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ

“স্কুল বাঁচলে বাঁচবে শিক্ষা” এ শ্লোগানকে সামনে রেখে ঝালকাঠির ঐতিহ্যবাহী ‘রাজাপুর মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়’ এর বেহাত হওয়া সম্পত্তি পুনরুদ্ধার অনিয়ম ও দুর্নীতি প্রতিরোধে শিক্ষার্থীদের ১১ দফা দাবী বাস্তাবায়নে চলমান আন্দোলনের অংশ হিসেবে অবস্থান কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় বিদ্যালয়ের সম্মূখের মেইন রাস্তায় দুই ঘন্টব্যাপী এ অবস্থান কর্মসূচিতে প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন শ্রেনীপেশার মানুষ অংগ্রহন করেন।
স্কুল কতৃপক্ষ উল্লেখযোগ্য তেমন কোন ব্যবস্থা এখনও পর্যন্ত দেখাতে পারে নাই বলে চলমান আন্দোলনের অংশ হিসাবে মানববন্ধন,সংবাদ সম্মেলন,প্রতিবাদী গনস্বাক্ষর,লিফলেট বিতরণ,পোস্টার লাগানো, প্রতিবাদী মৌনমিছিল ও আজকের প্রতিবাদী অবস্থান কর্মসূচির মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হয়। আন্দোলনের ১১দফা দাবী বাস্তবায়নের লক্ষে আগামী দিনে আরো কঠোরতম কর্মসূচি দেয়া হবে বলে হুশিয়ারী দেয়া হচ্ছে। যোক্তিক ১১ দফা দাবী যা নিম্মে দেয়া হলো।
১১ দফা দাবি সমূহ হলোঃ
১। বিদ্যালয়ের মূল ক্যাম্পাসের পিছনের উত্তর পাশের খাল পর্যন্ত জমিটি সীমানা প্রাচীর র্নিমাণ করে একাডেমিক কার্যের উদ্দেশ্যে সংরক্ষণ করতে হবে।
২। মাঠের পশ্চিম পার্শ্বে বিদ্যালয়ের বোডিং পুকুর সংলগ্ন ভোকেশনাল ক্যাম্পাস থেকে ক্রীড়া পরিষদের ভবন র্নিমাণে অনুমতি বাতিল করে র্নিমান সামগ্রী অপসারণ করতে হবে।
৩। ভোকেশনাল ক্যাম্পাসের পূর্বের একাডেমিক ভবনের ভাড়া বাতিল করে একাডেমিক কার্যক্রম পূনরায় চালুসহ তৎসংলগ্ন জমি সুরক্ষায় সীমানা প্রাচীর র্নিমাণ করতে হবে।
৪। বিদ্যালয়ের ঐতিহ্যবাহী খেলার মাঠের সংকোচন রোধ ও খেলার সুষ্ঠ পরিবেশ রক্ষার্থে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করতে হবে।
৫। বদ্ধভূমি সংলগ্ন বিদ্যালয়ের জমিতে বিদ্যমান লিজ ও অবৈধ হস্তান্তরকৃত স্থাপনা উচ্ছেদে করে সীমানা নির্ধারণ ও বিদ্যালয়ের নাম সম্বলিত সাইনবোর্ড স্থাপন করতে হবে।
৬। আফসার আলী আকন শিক্ষক-ছাত্র মিলনায়তন এর ভাড়া বাতিল করে পূনরায় মিলনায়তনটি চালু করতে হবে।
৭। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের জন্য বরাদ্ধকৃত বাসভবনের দক্ষিন পার্শ্বে থানা রোড পর্যন্ত পতিত জমিতে সীমানা নির্ধারণ করে সাইনবোর্ড স্থাপন করতে হবে।
৮। বিগত বছর থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত প্রদানকৃত লীজ বাতিল করে উক্ত সম্পত্তি বিদ্যালয়ের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট কাজে ব্যবহার করতে হবে।
৯। বিদ্যালয়ের নিয়োগ প্রক্রিয়া ও পরিচালনা পর্ষদ গঠনসহ সকল প্রশাসনিক সিদ্ধান্ত ও কার্যক্রম স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে হবে।
১০। ঐতিহ্যবাহী বিদ্যালয়টিতে অধ্যয়নরত সহ¯্রাের্ধো শিক্ষার্থীর জন্য আবশ্যক প্যারেড গ্রাউন্ড নিশ্চিত ও দীর্ঘ দিনের আলোচিত গ্রন্থাগার স্থাপন করতে হবে।
১১। ক্যাম্পাসের সম্মুখভাগে একাডেমিক পরিবেশ ও সৌন্দর্য্য বিনষ্ট করে এমন কোন উদ্যোগ,যেমন-স্টল র্নিমান বা ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠান র্নিমান না করার স্থায়ী সিদ্ধান্ত গ্রহন করতে হবে।
উপরের দাবী বাস্তবায়নের লক্ষে চলামান কর্মসূচির অংশ হিসাবে আজকের প্রতিবাদী মৌনমিছিল কর্মসূচির মাধমে দাবী আদায়ের চেষ্টা অব্যহত থাকবে,যদি স্কুল কতৃপক্ষ দাবী আদায়ে ব্যর্থ হয় তাহলে আগামী দিনে কঠোর কর্মসূচির হুশিয়ারী প্রদান করেন।

এ সময় প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামীলীগ এর সভাপতি এ্যাড. এএইচএম খায়রুল আলম সরফরাজ, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও অত্র বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সাবেক সভাপতি মিলন মাহমুদ বাচ্চু মৃধা, মুক্তিযোদ্ধা এনায়েত হোসেন খান মিলু , ঝালকাঠি জেলা আওয়ামীলীগ এর সহ-সভাপতি এ্যাড. সঞ্জিব কুমার বিশ্বাস, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শাহ আলম নান্নু,বাবু গৌরঙ্গ সাহা,জয়রাম তেওয়ারী, বাবু নিত্যানন্দ সাহা, উপজেলা যুবলীগ এর সভাপতি আসলাম হোসেন মৃধা, নাসির উদ্দিন তালুকদার জুয়েল,জাকারিয়া সুমন, আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহ সুমন সিকদার প্রমূখ।
এছারাও আরো উপস্থিত থেকে চলমান আন্দোলনে সার্বিক সহায়তা করছেন মোস্তফা সিকদার,পলাশ মাতুব্বর,সায়েম আকন, মো.মনিরুজ্জামান রেজোয়ান,সাকিদ মাহমুদ, দুলাল তেওয়ারী, জাকারিয়া আলম নয়ন, রাজিব ফরাজী, বর্তমান শিক্ষার্থীদের মধ্যে মঈন, হাছিব ।

উল্লেখ্য বিদ্যালয়ের বেহাত হওয়া সম্পত্তি পুনরুদ্ধার অনিয়ম ও দুর্নীতি প্রতিরোধে মানববন্ধন ,মৌনমিছিল ও গণস্বাক্ষর কর্মসূচি গত ৪৭ দিন যাবত পালন করে আসছে আন্দোলনকারীরা। তাদের ১১ দফা দাবী বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত তাদের আন্দোলন চলমান থাকবে বলে আন্দোলনকারীরা জানায়।