চট্টগ্রামে ভুয়া দলিল বানিয়ে কেনাবেচা হচ্ছে সরকারি পাহাড়!

প্রকাশিত: জুলাই ২৩, ২০২০

চট্টগ্রামে ভুয়া দলিল বানিয়ে সরকারি পাহাড় কেনাবেচা করছে ৬০ থেকে ৭০ জনের একটি সিন্ডিকেট।
পাহাড় দখল করে বেচাকেনায় থাকা ৬০ থেকে ৭০ জনের সিন্ডিকেটে রয়েছে জনপ্রতিনিধি, জামায়াত, বিএনপি ও ক্ষমতাসীন দলের লোকেরা। পাহাড় দখলে তাদের রয়েছে আলাদা বাহিনীও। প্রশাসনের নাকের ডগায় এসব পাহাড় প্লট বানিয়ে বিক্রি করেছে প্রভাবশালী ভূমিদস্যুরা।

দখলদারদের একজন নাছির উদ্দিন। তিনি একসময় ছিলেন চট্টগ্রামের বড়পুল এলাকায় সিঙ্গাপুর মার্কেটের দোকানদার। সরকারি পাহাড় দখল করে বিক্রির সিন্ডিকেটে যোগ দিয়ে অঢেল অর্থবিত্তের মালিক বনে গেছেন রাতারাতি। ছোট পুল এলাকায় তৈরি করেছেন ৬তলা একটি ভবন। এই ভবন ছাড়াও তার রয়েছে বিপুল অর্থবিত্ত। ২০১৮ সালে নাশকতা মামলায় গ্রেপ্তারও হন নাছির।

তবে, অভিযোগ অস্বীকার করেছেন নাছিরউদ্দিন। এমনকি তিনি কোনোদিন এসবের সঙ্গে ছিলেনই না বলেও দাবি করেন।

অভিযোগ রয়েছে, নাছিরউদ্দিনের মতো ৯ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি জমির উদ্দিনও বেশ কয়েকটি পাহাড় দখল করে ভুয়া দলিল বানিয়ে বিক্রি করেছেন।

করোনা মহামারির সুযোগেও পাহাড় কেটে দখল কার্যক্রম আরও বাড়িয়েছে ভূমিদস্যুরা। এই সিন্ডিকেটে সক্রিয় ৬০ থেকে ৭০ জন সদস্য। জড়িত রয়েছেন জনপ্রতিনিধিসহ সব দলেরই লোক।

এ পর্যন্ত পাহাড়ে সরকারি ৬শ’ ২৩ একর জায়গা দখল এবং ভুয়া দলিল বানিয়ে বিক্রি করা হয়েছে। পরিবেশবিদদের অভিযোগ, প্রকাশ্যে এসব পাহাড় কাটা হলেও ব্যবস্থা নেয়নি প্রশাসন।

পরিবেশবিদ অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ ইদ্রিস আলী বলেন, ‘এসব বন্ধ করতে হলে অপরাধীদের মুখোশ উন্মোচন করতে হবে।’

তবে চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াছ হোসেন বলছেন, ‘সিন্ডিকেট সদস্যদের চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’ এই চক্রটিকে আইনের আওতায় আনতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা তৎপর রয়েছে বলে জানান জেলা  প্রশাসক।

দখল হওয়া পাহাড়ের বেশিরভাগ সীতাকুন্ড জঙ্গল সলিমপুর ও আলীনগরে ও হাটহাজারী এলাকায়।
©DBC