চেয়ারম্যান পদে বাবা-ছেলে-মেয়ের মনোনয়নপত্র জমা

প্রকাশিত: নভেম্বর ২৬, ২০২১

শরীয়তপুরের ডামুড্যা উপজেলায় চতুর্থ ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বাবা, ছেলে ও মেয়ে একসঙ্গে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এতে করে এলাকায় ব্যাপক আলোচনা চলছে।

বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর) দুপুর ১২টার দিকে উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফার কাছে শিধুলকুড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দেন পিতা আবুল কালাম শামসু্দ্দি, ছেলে খবির উদ্দিন ও মেয়ে কাউছার জাহান।

রিটার্নিং কর্মকর্তার অফিস সূত্রে জানা যায়, চতুর্থ ধাপের ইউপি নির্বাচনে ডামুড্যার ৭টি ইউনিয়নের ভোট অনুষ্ঠিত হবে। এতে শিধুলকুড়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৮ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এরমধ্যে একই পরিবারের বাবা আবুল কালাম শামসু্দ্দি, ছেলে খবির উদ্দিন ও মেয়ে কাউছার জাহান চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দেন।

চেয়ারম্যান মনোনয়নপত্র দাখিল করা ছেলে খবির উদ্দিন বলেন, নির্বাচনে একটি পন্থা হিসেবে আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমার বাবা, আমি ও বোন তিনজনে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করলে প্রতিটা কেন্দ্রে এজেন্ট বেশি দিতে পারব। আমার এখানে তিন কেন্দ্র বেশি ঝুঁকিপূর্ণ।

তিনি আরও বলেন, এই কেন্দ্রের সামনে প্রার্থী থাকলে ভোটাররা সুষ্ঠুভাবে ভোট দিতে পারবে। এদিকে ৩ নম্বর ওয়ার্ডের সেন্টার আগে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থাকলেও এখন সেটি কেটে আমাদের প্রতিপক্ষের বাড়ির সামনের মাদরাসায় নিয়ে গেছে। তাই আমরা এটি অবলম্বন করেছি।

উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফা বলেন, শিধুলকুড়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৮ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। ২৯ নভেম্বর মনোনয়নপত্র বাছাই এবং ৬ ডিসেম্বর মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন। ভোট হবে ২৬ ডিসেম্বর। এছাড়া উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৩৭, সাধারণ সদস্য পদে ১৯৬ ও নারী সদস্য পদে ৬৮ জন মননোয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, উপজেলা ৭ ইউনিয়নে ৬৬ কেন্দ্রে ৮৩ হাজার ৩৫৫ জন ভোটার ভোট প্রয়োগ করবেন। বাংলাদেশ ইসলামী আন্দোলনের চেয়ারম্যান পদে ১ জন প্রার্থী দলীয় হাতপাখা প্রতীকে নির্বাচন করছেন। এছাড়া ৩৬ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দেন।

সাধারণ সদস্য পদে ১৯৬ ও নারী সদস্য পদে ৬৮ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে। এছাড়া ইসলামপুর ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডে ওয়াসিম সরদার ও পূর্ব ডামুড্যা ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডে সাইফুল ইসলাম ছাড়া ওই ওয়ার্ডে আর কোনো ইউপি সদস্য মনোনয়নপত্র জমা দেননি।

এছাড়া উপজেলার সিড্যা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে মননোয়নপত্র জমা দিয়েছেন স্বামী ও স্ত্রী এবং দারুল আমান ইউনিয়নে বাবা ও ছেলে মননোয়নপত্র জমা দিয়েছে।