ভোটের মাঠে আনন্দ ছড়াচ্ছেন নায়ক সাইমন

প্রকাশিত: নভেম্বর ২৪, ২০২১

দিন নেই, রাত নেই, এক এলাকা থেকে আরেক এলাকায় ছুটে চলেছেন তিনি। বাবাকে নির্বাচনে জয়ী করতে তার প্রাণান্তকর চেষ্টা। তিনি জাতীয় চলচিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত অভিনেতা সাইমন সাদিক। তার সরব উপস্থিতি ভোটের উৎসবে বিভিন্ন বয়সের নারী-পুরুষের কাছে ভিন্ন রকম আনন্দ আমেজে ধরা দেওয়ার কথা বলছে নতুন প্রজন্ম। সৎ ও যোগ্য প্রার্থীকে ভোট দেওয়ার অঙ্গীকার ভোটারদের।

জানা গেছে, সাইমনের বাবা মো. সাদেকুর রহমান কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার মহিনন্দ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করছেন। আর বাবাকে বিজয়ী করার লক্ষ্যেই সাইমন দিন-রাত নির্বাচনী মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। বর্তমান সরকারের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখা ও সাধারণ মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের আশ্বাস দিয়ে পাড়া-মহল্লার প্রতিটি ঘরে গিয়ে নৌকা প্রতীকে ভোট চাচ্ছেন তিনি।

বাবার নির্বাচনী প্রচারের জন্য সাইমন ‘বায়া দে’শিরোনামে একটি গানও লিখেছেন এই অভিনেতা। যাতে কণ্ঠ দিয়েছেন ও সুর-সংগীতায়োজন করেছেন তারই বন্ধু শাহরিয়ার রাফাত।

আগামী ২৮ নভেম্বর তৃতীয় ধাপে মহিনন্দ ইউপির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সেই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন সাইমনের বাবা মো. ছাদেকুর রহমান। বাবার জন্যই তিনি ভোট চাচ্ছেন। লম্বা বিরতির পর আবারও রাজনীতিতে ফিরেছেন সাইমনের বাবা মহিনন্দ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সাদেকুর রহমান। সুস্থ রাজনীতির জন্য তার বেশ সুনাম রয়েছে।

স্কুল ছাত্রী তানিয়া বলেন, ‘আমি ভোটার না, তবে আমরা ভোটের আনন্দ উপভোগ করছি। চিত্রনায়ক সাইমন সাদিক আমাদের কাছে আসছেন। আমাদের এলাকায় মানুষের ঘরে ঘরে গিয়ে ভোট চাচ্ছেন। সেটা দেখে আমার অনেক খুশি ও আনন্দিত।’

কিশোর সানী জানান, ‘জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত চলচ্চিত্র নায়ক সাইমন সাদিক তার বাবার জন্য ভোট চাইতে মানুষের ধারে ধারে সকলে বাড়ি আসতেছে। সেটা আমাদের নির্বাচনটাকে অনেক উপভোগ্য করে তুলেছে।’

গালিম গাজী গ্রামের কৃষক বাশার মিয়া জানান, ‘আমার এমন মানুষকেই ভোট দেবো যে এলাকায় সন্ত্রাস ও মাদক মুক্ত রাখতে পারে।’

নাথপাড়া গ্রামের বৃহবধূ আমেনা খাতুন বলেন, ‘যাকে ভোট দিলে এলাকার উন্নায়ন অইব ও ভাল-মন্দ খোঁজ নিব এরারেই ভোট দিমু।’

সাইমন সাদিক জানান, ‘আব্বু সেই ১৯৮৩ সাল থেকেই মানুষের পাশে আছেন। মানুষের পাশে থাকতে তিনি পছন্দ করেন, ভালোবাসেন। নির্বাচনে আমি এলাকায় আসছি। কারণ আমি কিন্তু আমার এলাকার নায়ক না। নায়কের মতো চলাফেরাও এলাকায় করছি না।’

তিনি আরও জানান, এই ইউনিয়নেই আমার বেড়ে ওঠা। সবকিছু আমি জানি ও চিনি। প্রতিমাসেই গ্রামে আসি। সবার সঙ্গে আমার একটা গভীর সম্পর্ক আছে। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দীর্ঘ এক মাস আমি গ্রামে আছি। মানুষের কল্যাণে কাজ করতে চাই। যাতে এলাকার উন্নয়ন হয়।’

সাইমন আরও জানান, সকাল থেকে রাত পর্যন্ত এলাকার ঘরে ঘরে গিয়ে ভোট চাচেছন তিনি। উঠান বেঠক, পথসভা ও মিছিল-মিটিং করছি। এলাকার মানুষও তাকে কাছে পেয়ে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা নিয়ে কাজ করছে। তিনি সবার কাছে দোয়া চান। যাতে তাদের এই ভালোবাসার মূল্য দিতে পারেন।