অবৈধ অনুপ্রবেশের মামলায় জামিন পেলেও ৫৪ ধারায় কারাগারে সাংবাদিক কাজল

প্রকাশিত: মে ৩, ২০২০

নিখোঁজ সাংবাদিক কাজলকে অবৈধ অনুপ্রবেশের মামলায় জামিন দিলেও ৫৪ ধারার নতুন মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। রোববার (৩ মে) দুপুর ৩টার দিকে তাকে যশোর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মঞ্জুরুল ইসলামের আদালতে আনা হয়। এরপর ৫টার দিকে শুনানি শেষে বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।এদিকে সাংবাদিক কাজলকে অমানবিকভাবে হাতকড়া পরিয়ে আদালতে আনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সাংবাদিক ও আইনজীবীরা। গত ১০ মার্চ ঢাকা থেকে নিখোঁজ হন ‘দৈনিক পক্ষকাল’ পত্রিকার সম্পাদক শফিকুল ইসলাম কাজল। ১১ মার্চ শফিকুলের স্ত্রী জুলিয়া ফেরদৌসি নয়ন ঢাকার চকবাজার থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন। প্রায় দুই মাস পর গতকাল গভীর রাতে বেনাপোলের রঘুনাতপুর বিজিবি ক্যাম্পের সদস্যরা ভারত থেকে অবৈধ ভাবে প্রবেশের সময় তাকে আটক করে। এরপর আজ সকালে বিজিবি তাকে অবৈধ অনুপ্রবেশ আইনে মামলা দিয়ে বেনাপোল পোর্ট থানায় সোপর্দ করে।

দুপুর ৩টার দিকে কাজলকে যশোর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে নিয়ে আসে। এরপর বিকেল ৫টার দিকে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মঞ্জুরুল ইসলামের আদালতে হাজির করলে বিচারক শুনানি শেষে অবৈধ অনুপ্রবেশের মামলায় জামিন দেন। তবে তার বিরুদ্ধে ঢাকার শেরে বাংলা, কামরাঙ্গিরচর ও হাজারিবাগ থানায় আইসিটি এ্যাক্টের মামলা থাকায় কোতোয়ালী থানা পুলিশ আটকাদেশ পেতে নতুন করে ৫৪ ধারায় মামলা দিয়ে গ্রেফতারের আবেদন জানান। পরে বিচারক এ মামলায় তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। কোর্ট পরিদর্শক মাহাবুবুর রহমান জানান, অনুপ্রবেশের মামলায় জামিন পেলেও তাকে ৫৪ ধারায় আটকাদেশ দিয়েছেন বিচারক। তিনি বলেন, কাজলের নামে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে তিনটি মামলা রয়েছে। ওই মামলার কারণে তাকে কোতোয়ালী থানা থেকে ৫৪ ধারায় আটকাদেশের আবেদন জানানো হয়। বিচারক শুনানি শেষে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। ঢাকা থেকে ওই তিন মামলার কাগজপত্র আসলে তাকে শোনএ্যারেস্ট দেখানোর উদ্যোগ নেয়া হবে। কাজলের ছেলে মনোরম পলক জানান, একটি মামলায় জামিন হয়েছে। সে বেঁচে আছে এজন্য শুকরিয়া জ্ঞাপন করেন এবং তার পিতার খোঁজখবর রাখার জন্য সকলকে অনুরোধ করেন। এদিকে সাংবাদিক কাজলকে দুপুরে হাত পিছনে দিয়ে হাতকড়া পরিয়ে আদালতে হাজির করা হয়। এসময় তার সাথে পুলিশের অমানবিক আচরণে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সাংবাদিক ও আইনজীবীরা।