লিগ স্পিনার না খেলালে জিতেও পয়েন্ট পাবে না দলগুলো

প্রকাশিত: অক্টোবর ১০, ২০২১

বাংলাদেশ ক্রিকেটে লেগ স্পিনার যেন ‘স্টোর রুমে’ ফেলে রাখা কোন এক জঞ্জাল। কিংবা দীর্ঘদিন ‘শোকেসে’ সাজিয়ে রাখা সেই আসবাবটি, যেটির আর চল নেই একেবারে। বাংলাদেশ ক্রিকেটে লেগ স্পিনার যে নেই তা একেবারেই নয়, মাঠের লড়াইয়ে তাদের চাহিদা নেই বললেই চলে। আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সর্বসাকুল্য ১৬টি দল অংশ নিয়েছে, সেখানে একমাত্র দল বাংলাদেশ, যাদের স্কোয়াডে কোন লেগ স্পিনার নেই।

ঘরোয়া ক্রিকেটে লেগ স্পিনার খেলানোর বাধ্যবাধকতা কম হয়নি, তবে প্রয়োগ নেই একেবারে। বাংলাদেশ ক্রিকেটের পাইপলাইন তৈরি কাজ হয় হাইপারফরম্যান্স ইউনিট থেকে। অথচ সম্প্রতি চট্টগ্রামে বাংলাদেশ ‘এ’ দলের বিপক্ষে এইচপির দুই লেগ স্পিনার মিলে ৬ ম্যাচে সুযোগ পেয়েছেন মাত্র ১ ম্যাচ। বিশ্বকাপ স্কোয়াডে স্ট্যান্ডবাই হিসেবে ডাক পান আমিনুল ইসলাম বিপ্লব। তাকেও দেশে ফিরিয়ে আনছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড।

নিয়মিত ম্যাচ না পেলে এই লেগ স্পিনাররা দক্ষ হবেন কীভাবে? এজন্য এবার বেশ শক্ত পথে হাঁটার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বোর্ডের গেম ডেভেলপমেন্ট বিভাগ। বিভাগীয় কোচদের ডেকে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, বয়সভিত্তিক দলে লেগ স্পিনার খেলানো বাধ্যতামূলক। কেউ না খেলালে ম্যাচ জিতলে পয়েন্ট যোগ হবে না নামের পাশে। প্রয়োজনে বদলি হিসেবে খেলিয়েও বল করাতে হবে অন্তত একজন লেগ স্পিনার দিয়ে।

আজ (রোববার) মিরপুরে কোচদের সাথে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে গেম ডেভেলপমেন্টের চেয়ারম্যান খালেদ মাহমুদ সুজন বললেন, ‘একটা বাধ্যবাধতা করবো আমরা দরকার পড়লে। সুপারসাব দিবো শুধু একটা লেগ স্পিনারের জন্য। যেন একটা লেগস্পিনার খেলাতে বাধ্য এবং সে ২০ ওভার করবে প্রতি ইনিংসে। তা না করলে ঐ টিম জিতলেও পয়েন্ট পাবে না।’

সঙ্গে যোগ করেন সুজন, ‘এটাতে দুর্বল শক্ত কিংবা কে জিতল কে হারলো তা নয়, এটা ডেভেলপিং প্লেয়ারর্স। তো এটাই আমি তাদেরকে আজকেও মনে করিয়েছি। এবং আমি ঐটাই চাই এবং ঐটাতে ইম্প্লিমেন্ট করার চেষ্টা করছি।’