করোনা নিয়ে মানুষ কেন এখনো উদাসীন, জানেন?

প্রকাশিত: এপ্রিল ২০, ২০২০

অনুরূপ আইচ : বাংলাদেশের করোনা পরিস্থিতি খারাপের দিকে এগুচ্ছে। প্রতিদিন মরছে মানুষ। মৃত্যুর মিছিলে যেন লোক বাড়ছেই প্রতিদিন। তবুও সে অর্থে আপামর বাঙালি সচেতন হচ্ছে না। শেখ হাসিনা সরকার দিনরাত পরিশ্রম করেও যেন মানুষকে বোঝাতে সক্ষম হতে পারছেন না- করোনার ভয়াবহতা নিয়ে। এর জন্য অনেকেই দায়ী করছেন, ভারতীয় টিভি চ্যানেলগুলোকে। বাংলাদেশে যেসব ভারতীয় চ্যানেল প্রচার হয় তার কোনোটিতেই করোনা নিয়ে মানুষকে সচেতন করার মতো কিছুই প্রচার হচ্ছে না। অথচ বাংলাদেশের নিরক্ষর বা অল্প শিক্ষিত মানুষের একটা বড় অংশ ভারতীয় এই চ্যানেলগুলোর নিয়মিত দর্শক। তাই করোনাকালীন সময়ে বাংলাদেশে বিদেশী টিভি চ্যানেল প্রচারের সাময়িক নিষেধাজ্ঞার দাবীও উঠেছে। কারণ, বাংলাদেশের শিক্ষিত মানুষের মাঝে অনেকটা সচেতনতা দেখা গেলেও গ্রামকেন্দ্রিক বেশিরভাগ মানুষের মাঝে করোনা নিয়ে স্পষ্ট ধারণা নেই, কিভাবে এর সংক্রামণ থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। এরজন্য দেশের কিছু ধর্মীয় বক্তাকেও দায়ী মনে করছেন বিশেষজ্ঞ সাংবাদিকেরা। কারণ, বাংলাদেশে করোনা সংক্রমণ মারাত্মক প্রভাবের আগেই বিভিন্ন ওয়াজ মাহগিলে এসব বক্তরা অজ্ঞানতা বশত বলে ফেলেছেন, মুসলমানদেরকে কখনো করোনা ধরবে না। সেই ওয়াজ মাহফিলের ভিডিওগুলো এখনো ইউটিউবে প্রচার হতে থাকায়, দেশের অনেক ধর্মান্ধ মুসলিম সেই মওলানাদের বক্তব্যকে সঠিক হিসেবে বিবেচনা করছেন। যেজন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মাওলানা জুবায়ের আহমদ আনসারীর জানাজায় তিন উপজেলার আট গ্রামের লক্ষাধিক লোকের অংশ গ্রহণ করে। এর জন্য পুলিশের কিছু অফিসারকে শাস্তি দিলেও, আমার মতে- তাদের দোষ কম। ইউটিউবে করোনা সচেতনতা তৈরিতে বাধা সৃষ্টিকারী সকল ভিডিও নামাতে আগে উদ্যোগ নিতে হবে দেশের তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের। আর বিদেশি টিভি চ্যানেল সাময়িক বন্ধ করতে হবে তথ্য মন্ত্রণালয়কে। নইলে জানাজায় অংশ নেয়া লোক বা আনসারির পরিবারকে ফাইন না করে পুলিশকে শাস্তি দিয়ে লাভ হবে না। এমনিতেই করোনা প্রতিরোধে মানুষকে সচেতন করতে গলদঘর্ম অয়ে যাচ্ছে সরকার ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর। তবে এই করোনা মহামারী পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একক প্রচেষ্টাকে ব্যাক্তিগতভাবে সাধুবাদ জানিয়ে ফেসবুকে লেখালিখি করে যাচ্ছেন খোদ আওয়ামী লীগ বিরোধীরাও। আমি বিশ্বাস করি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমার এই প্রস্তাবগুলো সাদরে গ্রহণ করবেন দেশের মানুষের করোনা সচেতন করতে।

লেখক পরিচিতিঃ সম্পাদক, দ্যা ডেইলি মিরর