বাংলাদেশের ভেতরে ঢুকে বাবার সামনেই সন্তানের পেটে গুলি বর্বর বিএসএফ এর

প্রকাশিত: এপ্রিল ২০, ২০২০

সীমান্তের ৭৬২ নম্বর মেইন পিলার এলাকায় গুলিবিদ্ধ হলে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে প্রথমে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। পরে সেখান থেকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

শিমোনের বাবা পরেশ চন্দ্র রায় বলেন, ‘ছেলেসহ আমরা পাট খেতে সুতার নেটের বেড়া দিচ্ছিলাম। সেখান থেকে ভারতের কাঁটাতারের বেড়া ১৫০ গজ দুরে। ঘটনার সময় ছেলে ২০-২৫ হাত দূরে কাজ করছিল। এ সময় বাঁশের কঞ্চি ভেঙে হাতে নিয়ে একজন ভারতীয় বিএসএফ সদস্য এগিয়ে আসেন এবং বকাবকি করতে থাকেন।

তিনি জানান, তখন কাছে এসে শিমোনের সঙ্গে কথাকাটাকাটিতে লিপ্ত হন। একপর্যায়ে ওই বিএসএফ সদস্য তার পেটে বন্দুক ধরে গুলি করেন। তখন আমাদের চিৎকারে স্থানীয়রা ছুটে এলে ওই বিএসএফ সদস্য পালিয়ে যান।’ গুলি করার সময় বিএসএফ সদস্য বাংলাদেশে চলে এসেছিলেন বলেও দাবি করেন পরেশ।

এ ব্যাপারে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) মো. তোফায়েল আহমেদ গণমাধ্যমকে বলেন, ছেলেটির পেটের সামনে দিয়ে গুলি ঢুকে পিঠের পাশ দিয়ে বেরিয়ে গেছে। তার কিছু নাড়ি-ভুঁড়িও বের হয়ে গেছে। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে তাকে।

জানতে চাইলে নীলফামারী ৫৬ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. মামুনুল হক গণমাধ্যমকে বলেন, ‘বিষয়টি জানার পর তদন্ত শুরু করেছি। ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে বিএসএফের কাছে এর কারণ জানতে চাওয়া হবে।’

এসময় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সীমান্তে ভারতের কাছাকাছি না যাওয়ার জন্য স্থানীয়দের প্রতি অনুরোধ জানান তিনি।