বাবা হত্যার আসামি পুলিশে ধরায় ছেলের হাতের কব্জি কেটে নিল ছাত্রলীগ

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২০

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে একটি হত্যা মামলার আসামিকে গ্রেফতার করার জের ধরে বাদীর বাড়িতে তাণ্ডব চালিয়েছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

এ সময় ওই মামলার বাদীর ছোট ভাই কলেজছাত্র রনিকে কুপিয়ে হাতের কবজি দ্বিখণ্ডিত করে ফেলে হামলাকারীরা।

মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার কালাপাহাড়িয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

বুধবার হামলাকারীদের বিরুদ্ধে আড়াইহাজার থানায় মামলা দায়ের করেছেন আহত রনির বোন জোৎস্না বেগম।

বাদী পক্ষের দাবি, কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেনের নেতৃত্বে উক্ত হামলা চালানো হয়।

অভিযুক্ত সাদ্দাম কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতা ডালিমের ঘনিষ্ঠ বলে জানিয়েছে এলাকাবাসী। তবে ঘটনার ২ দিন হলেও বুধবার বিকাল পর্যন্ত আসামিদের গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

স্থানীয় সূত্র ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আড়াইহাজার উপজেলার কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়নের ইজারকান্দি গ্রামে আট বছর আগে খুন হন রব মিয়া। এ ঘটনায় মামলা করেন নিহতের ছেলে মাঈন উদ্দিন। শনিবার ওই মামলার এক আসামিকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মঙ্গলবার ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেনের নেতৃত্বে ইয়ানুছ আলী, রাসেল, জুয়েল, জাকির, আলী হোসেন, হালিম ও আলামিনসহ ১৫-১৬ জনের ছাত্রলীগের এক দল নেতাকর্মী বাদীর বাড়িতে হামলা চালায়। এ সময় মামলার বাদী মাঈন উদ্দিনের ঘরে ঢুকে মাঈন উদ্দিন, তার স্ত্রী, ছোট ভাই মোহাম্মদ রনি ও মা জাহানারা বেগমকে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে ও পিটিয়ে গুরুতর আহত করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

কোপানোর সময় বাদীর ছোট ভাই কলেজ ছাত্র রনি সন্ত্রাসীদের বাধা দিলে তাকেও কোপাতে থাকে সন্ত্রাসীরা। এ সময় রনির মাথায় গুরুতর আঘাত লাগে এবং তার বাম হাতের কবজি বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

অন্য আহতরা স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন বলে জানা গেছে। এ নিয়ে আতঙ্কে রয়েছে নিহত রব মিয়ার পরিবার।

বিষয়টি অস্বীকার করে ছাত্রলীগ সভাপতি সাদ্দাম জানান, আমি ঘটনাস্থলে ছিলাম না।

অপরদিকে আড়াইহাজার থানা পুলিশের ওসি নজরুল ইসলাম বলেন, হত্যা মামলার আসামিকে পুলিশ গ্রেফতার করায় বাদীর বাড়িতে হামলা চালিয়ে কয়েকজনকে আহত করা হয়েছে। আহতদের পরিবারের পক্ষ থেকে দায়ের করা অভিযোগটি মামলা হিসেবে রুজু করা হয়েছে। তদন্ত করে এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।