টিকা নিয়ে সমস্যা হয়েছে, এখন এসে গেছে

প্রকাশিত: জুলাই ৩, ২০২১

করোনাভাইরাসের টিকা নিয়ে একটা সমস্যা হয়েছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ইতিমধ্যে টিকা এসে গেছে।

শনিবার (৩ জুলাই) জাতীয় সংসদের চলমান অধিবেশনের সমাপনী বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, টিকার একটা সমস্যা হয়েছে। সেটা আমি আগেও বলেছি যে আমাদের টিকার একটা সমস্যা দেখা দিয়েছিল। টিকা নিয়ে যখন গবেষণা শুরু হয় তখন সব দেশের সঙ্গে আমরা যোগাযোগ করি। ভারত থেকে যখন আমরা খবর পেলাম তাদের কাছ থেকে তখন আমরা কিনে ফেললাম নগদ টাকা দিয়ে। ভারতে যে আকারে করোনাভাইরাসের মহামারি দেখা দিল তখন রফতানি বন্ধ করে দিল।

তিনি বলেন, তারপর কিছুদিন আমাদের সমস্যা হয়েছে। ইতিমধ্যে টিকা এসে গেছে। ফাইজারের যে টিকা এসেছে আমরা বলেছি বিদেশে আমাদের শ্রমিক যারা যাচ্ছেন তাদের অগ্রাধিকার থাকবে এই টিকা পাওয়ার। গতকাল রাতে এবং আজকে সকালে ইতিমধ্যে মডার্না এবং সিনোফার্মের টিকা বাংলাদেশে পৌঁছে গেছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সিনোফার্মের এই টিকা আমরা কিন্তু ক্রয় করেছি। এর আগে আমাদেরকে চীন থেকে কিছু টিকা উপহারও পাঠানো হয়েছে। ‌ভারতও আমাদের কিছু উপহার দিয়েছে। এছাড়া পৃথিবীর অন্যান্য দেশে যেখানে যেখানে টিকা পাওয়া যাচ্ছে আমরা কিন্তু সঙ্গে সঙ্গে যোগাযোগ করছি।

তিনি বলেন, আরো টিকা আমরা নিয়ে আসব কিনে। যত লাগে আমরা কিনব সেজন্য বাজেটে আলাদা টাকা রাখাই আছে। এজন্য কোনো চিন্তা হবে না। আমরা চীন, রাশিয়া থেকে শুরু করে অস্ট্রেলিয়া সব দেশের সঙ্গেই যোগাযোগ করছি। যেখানে পাওয়া যাচ্ছে আমরা নিয়ে নিচ্ছি।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের নিজেদের প্লেন পাঠিয়ে চীন থেকে আমরা সিনোফার্মের টিকা নিয়ে এসেছি। এভাবে আমরা কিন্তু সংগ্রহ করছি। আর আমেরিকা থেকে যেটা এসেছে সেটা তারা পাঠিয়েছে। দেশে পৌঁছেছে।

তিনি বলেন, আমরা ইতিমধ্যে ঘোষণা দিয়েছি ৮০ শতাংশ জনগণকে টিকার আওতায় নিয়ে আসব। সব টিকা বিনামূল্যে দেওয়া হচ্ছে। আমরা কিনছি অনেক টাকা দিয়ে। কারণ প্রথমে যদি কিনতাম তখন অল্প দামে ছিল। কিন্তু এখন এটা অনেক দাম দিয়ে কিনতে হচ্ছে। তারপরও জনগণের জন্য জনগণের স্বার্থে জনগণের কল্যাণে আমরা বিনা পয়সায় টিকাদান কর্মসূচি দিয়েছি।

সংসদ নেতা বলেন, বিভিন্ন জেলায় যেহেতু করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে সেখানে বিনা পয়সায় আমরা করোনা পরীক্ষা শুরু করে দিয়েছি। পয়সা লাগবে না কিন্তু তাদের পরীক্ষা করা এবং তাদেরকে দেখা। যেসব শ্রমিক বিদেশে যাচ্ছে ভ্যাকসিনে তাদেরকে আমরা অগ্রাধিকার দিচ্ছি। ভ্যাকসিন নিয়ে যাতে তারা বিদেশে যেতে পারে এবং সেখানে যাতে তাদের কোয়ারেন্টাইন করতে না হয়। ‌সেভাবে আমরা বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছি এবং বাজেটেও প্রচুর টাকা বরাদ্দ রেখেছি।