কখন অ্যাপল সিডার ভিনেগার খেলে বেশি উপকার পাবেন?

প্রকাশিত: মার্চ ১৪, ২০২১

অ্যাপল সিডার ভিনেগার স্বাস্থ্যকর পানীয়গুলোর মধ্যে একটি। প্রাকৃতিকভাবে ফার্মান্টেড এই পানীয়র মধ্যে অ্যাসিটিক অ্যাসিড রয়েছে। এটি কয়েক শতাব্দী ধরে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। উপকারী অ্যাপল সিডার ভিনেগার কেবল স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনেই সহায়তা করে না পাশাপাশি ওজন কমাতেও দারুণ কার্যকরী। ওজন কমাতে চান এমন ব্যক্তিরা খাবারের তালিকায় অ্যাপল সিডার ভিনেগার রাখেন।

অ্যাপল সিডার ভিনেগার খাওয়ার সেরা সময়

অ্যাপল সিডার ভিনেগার খেলে নানারকম উপকারিতা মেলে একথা তো জানেন, কিন্তু আপনি কি ভেবে দেখেছেন যে ওজন কমানোর জন্য অ্যাপল সিডার ভিনেগার খাওয়ার সেরা সময়টি কখন? বেশিরভাগ মানুষ এটি সকালে খালি পেটে পান করতে পছন্দ করেন, কিন্তু এই পানীয় কি রাতে চর্বি পোড়াতে সাহায্য করে? এর উত্তর জানার আগে চলুন জেনে নেই অ্যাপল সিডার ভিনেগারের ওজন কমানোর প্রক্রিয়া।

অ্যাপল সিডার ভিনেগার কীভাবে ওজন কমাতে সহায়তা করে?

অ্যাপল সিডার ভিনেগারে খুব কম ক্যালোরি থাকে এবং এটি একটি দুর্দান্ত ডিটক্সাইফিং পানীয়। অতিরিক্ত ওজন কমানো ছাড়াও অতিরিক্ত স্বাস্থ্য সুবিধা এই পানীয়কে স্বাস্থ্যকর করে তোলে। রক্তে শর্করার মাত্রা স্থিতিশীল করতে, বিপাকের উন্নতি এবং চর্বি ঝরাতে সাহায্য করা অ্যাপল সিডার ভিনেগারের কাজ। এই পানীয় নিয়মিত পান করলে হৃদযন্ত্র ভালো থাকে, বাড়ে স্ট্যামিনা। এটি শরীরের জন্য ভালো ব্যাকটেরিয়াকেও উন্নত করতে পারে। কিছু গবেষণায় এও প্রমাণিত হয়েছে যে, অ্যাপল সিডার ভিনেগার শরীরে জারণ চাপ এবং ফ্রি র‌্যাডিকেলগুলোর স্তর হ্রাস করে। এটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে সমৃদ্ধ, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। সুতরাং, অ্যাপল সিডার ভিনেগার পান করার উপকারিতা কেবল চর্বি ঝরানো বা ওজন কমানোই নয়, পাশাপাশি শরীরের আরও অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজে প্রয়োজন হয় এটি।

অ্যাপল সিডার ভিনেগারের কী কী স্বাস্থ্য সুবিধা রয়েছে?

উপরের সুবিধাগুলো ছাড়াও, অ্যাপল সিডার ভিনেগার খেলে তা দীর্ঘ সময়ের জন্য পেট ভরিয়ে রাখে, যা ক্যালোরি গ্রহণ কমানোর মূল বিষয়। তবে দিনের মধ্যে এমন কোনো সময় কি রয়েছে যখন এই পানীয় পান করলে বেশি উপকার পাবেন?

সকালে বা রাতে অ্যাপল সিডার ভিনেগার পান করা ভালো?

আপনি নিশ্চয়ই এমনটা জেনেছেন যে, দিনের কোনো একটি সময়ে অ্যাপল সিডার ভিনেগার পান করলে বেশি উপকার মেলে। বেশিরভাগ মানুষ এই পানীয় নিয়মিত সকালে খালি পেটে পান করে থাকেন। এতে এটি ডিটক্সিং এবং ওজন কমানোর কাজে বেশি সাহায্য করে বলে মনে করা হয়। কেউ কেউ খাবারের আগে পানীয়টি খেতে পছন্দ করেন। তবে সত্যিটা হলো, অ্যাপল সিডার ভিনেগার খাওয়ার জন্য দিনের একটি নির্দিষ্ট সময়কে সমর্থন করার জন্য এখনও কোনো বৈজ্ঞানিক প্রমাণ মেলেনি। আপনি কোন সমস্যা থেকে দূরে থাকতে অ্যাপল সিডার ভিনেগার পান করছেন, তার ওপর নির্ভর করে আপনি এর থেকে বিভিন্ন উপকার পেতে পারেন।

খালি পেটে অ্যাপল সিডার ভিনেগার খেলে মেদ ঝরে

কিছু প্রমাণ রয়েছে যা অ্যাপল সিডার ভিনেগারের পক্ষে এই প্রমাণকে সমর্থন করে যে, সকালে খালি পেটে এই পানীয় খেলে দ্রুত ওজন কমে এবং এটি চর্বি বা মেদ পোড়াতে সাহায্য করতে পারে। এটি প্রাথমিকভাবে ডিটক্সাইফিং এজেন্ট হিসাবে কাজ করে। সকালে অ্যাপল সিডার ভিনেগার খেলে তা শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ পরিষ্কার করে এবং একটি নতুন শুরুতে সহায়তা করতে পারে। জনপ্রিয় এই উপায়ের প্রতি অনেক বিশেষজ্ঞেরও সমর্থন রয়েছে। একইভাবে, যারা সকালের দিকে পরিশ্রম করেন তারাও বিশ্বাস করেন যে অ্যাপল সিডার ভিনেগার পিএইচ স্তরের ভারসাম্য বজায় রাখতে পারে, শক্তি বাড়ায়, ক্লান্তি কমাতে পারে, ব্যথা দূর করতে পারে এবং ওয়ার্কআউট করার সময় শরীরকে অক্সিজেন সরবরাহ করার জন্য প্রয়োজনীয় স্ট্যামিনাকে উন্নত করতে পারে।

অ্যাপল সিডার ভিনেগার রাতে পান করলে কি উপকার মিলবে?

রাতে অ্যাপল সিডার ভিনেগার পান করা আবার অনেকের পছন্দ। যদিও অ্যাপল সিডার ভিনেগার ঘুমের আগে সরাসরি ওজন হ্রাসে সহায়তা করে না, তবে এটি ওজন বৃদ্ধিকে প্রভাবিত করে এমন উপাদানগুলো পরিচালনা বা নিয়ন্ত্রণ করে। কারও মতে, অ্যাপল সিডার ভিনেগার শোওয়ার আগে রক্তে শর্করার মাত্রা কমাতে পারে এবং হজমও সহজ করতে পারে। তবে খাওয়ার ঠিক পরপরই পান করলে হজমে দেরি হতে পারে, যা উপকারের বদলে অপকার করে। এদিকে খাওয়ার আগে অ্যাপল সিডার ভিনেগার খেলে তা অনেকটাই পেট ভরিয়ে দেয়। যা আপনাকে কম ক্যালোরি গ্রহণে সাহায্য করবে।

আপনার কী করা উচিত?

যদিও অ্যাপল সিডার ভিনেগার পান করার জন্য দিনের সেরা সময়টিকে সমর্থন করার মতো কোনো গবেষণা নেই, তবে খালি পেটে এটি পান করা সবচেয়ে জনপ্রিয় উপায়। এটি স্বাস্থ্যের সুবিধাগুলো সর্বাধিক বাড়িয়ে তুলতে পারে, হজমশক্তি বাড়িয়ে তুলতে পারে এবং নিয়মিতভাবে পান করলে চর্বি হ্রাস বাড়াতেও সহায়তা করতে পারে। তাই সকালের সময়টাই এই পানীয় পানের জন্য সেরা সময় হতে পারে। তবে এটি পান করার পরে অন্যকিছু খাওয়ার আগে অন্তত মিনিট বিশেক অপেক্ষা করতে হবে। তবে খেয়াল রাখবেন, কখনোই শুধু অ্যাপল সিডার ভিনেগার পান করবেন না। পানির সঙ্গে মিশিয়ে খাওয়া সবচেয়ে ভালো। ওজন কমানোর প্রক্রিয়া বাড়াতে আপনি এর সঙ্গে মধু, আদা বা লেবু যোগ করতে পারেন।