আবারও লকডাউনে যাচ্ছে ইতালি

প্রকাশিত: মার্চ ১৩, ২০২১

ইতালিতে আবারও করোনার প্রকোপ বেড়েছে। ফলে ফের বিধিনিষেধ আরোপের ঘোষণা দিয়েছে সরকার। আগামী সোমবার থেকে ইতালির বেশিরভাগ এলাকার দোকান, রেস্তোরাঁ ও স্কুল বন্ধ হয়ে যাবে। নতুন বিধিনিষেধের ঘোষণা দিয়ে করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের ‘নতুন ঢেউ’ সম্পর্কে দেশের মানুষকে সতর্ক করেছেন প্রধানমন্ত্রী মারিও দ্রাঘি।

বিবিসির শনিবারের এক অনলাইন প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়ে বলা হচ্ছে, ইতালির সরকারি ঘোষণা অনুযায়ী আসন্ন ইস্টার সানডের সময় অর্থাৎ আগামী ৩ থকে ৫ এপ্রিল কার্যত সম্পূর্ণ শাটডাউন থাকবে গোটা ইতালি।

চীন থেকে মহামারি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরুর পর এক বছর আগে প্রথম দেশ হিসেবে দেশজুড়ে লকডাউন জারি করেছিল ইতালি। ওই সময় ইউরোপে করোনা প্রাদুর্ভাবের কেন্দ্র হয়ে ওঠা ইতালি আবারও ভাইরাসটির ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণ ঠেকাতে হিমশিম খাচ্ছে। তাই নতুন করে বিধিনিষেধ আরোপের এমন সিদ্ধান্ত।

প্রাদুর্ভাব শুরুর পর এ পর্যন্ত ইতালিতে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে লক্ষাধিক মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। যুক্তরাজ্যের পর ইউরোপে যা দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। এদিকে টিকার সরবরাহ পেতে বিলম্ব হওয়ায় ইতালি তার জনগণকে সহজে টিকার আওতায় নিয়ে আসতে পারছে। ইইউ জোটভূক্ত প্রতিটি দেশেরই একই অবস্থা।

টিকার সংকটের কারণে ইউরোপীয় ইউনিয়নের গৃহীত নীতির অধীনে গত সপ্তাহে ইতালি অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার আড়াই লাখ ডোজ টিকার চালান অস্ট্রেলিয়ায় রপ্তানি আটকে দেয়।

ইতালির নতুন বিধিনিষেধগুলো কী?

আগামী সোমবার থেকে ইতালির অর্ধেকের বেশি এলাকায় স্কুল, দোকান ও রেস্তোরাঁ বন্ধ থাকবে। এরমধ্যে দেশটির সবচেয়ে জনবহুল দুই অঞ্চল রোম ও মিলানও রয়েছে। কর্মস্থল, স্বাস্থ্যগত সমস্যা ও জরুরি কোনো প্রয়োজন ছাড়া ইতালির এসব অঞ্চলের বাসিন্দাদের ঘরে বসে থাকতে হবে।

আসন্ন ইস্টার সানডে পর্যন্ত অতিরিক্ত এসব বিধিনিষেধ কার্যকর থাকবে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী দ্রাঘির কার্যালয় জানিয়েছে, ইস্টার সানডের সপ্তাহান্তে গোটা দেশ থাকবে উচ্চঝুঁকির রেড জোনে। ওই সময় সব বন্ধ থাকবে।

প্রধানমন্ত্রী মারিও দ্রাঘি বলেছেন, ‘আজ যেসব নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা দেওয়া হলো, আমি জানি এর প্রভাব পড়বে আপনার শিশুর শিক্ষায়, দেশের অর্থনীতি ও আমাদের সবার মানসিক স্বাস্থ্যে। কিন্তু পরিস্থিতি যাতে আরও শোচনীয় না হয় তা এড়াতেই আরও কঠোর বিধিনিষেধ কার্যকরের প্রয়োজন রয়েছে।’

বিবিসির শনিবারের প্রতিবেদন অনুযায়ী বিগত ছয় সপ্তাহ ধরে গোটা ইতালিতে মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত মানুষের সংখ্যা ক্রমশ বাড়ছে। দৈনিক গড়ে এই সংখ্যাটা ২৫ হাজারের বেশি। শুধু দেশটির দ্বীপাঞ্চল সারদিনিয়ায় সংক্রমণের হার কিছুটা কম।

বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদন অনুযায়ী ইতালির স্বাস্থ্য বিষয়ক থিংকট্যাংক গিমবে চলতি সপ্তাহে সতর্ক করে দিয়ে বলেছে, ‘দেশের বেশিরভাগ অঞ্চলের হাসপাতাল ও আইসিইউগুলো ইতোমধ্যে রোগীতে পূর্ণ হয়ে গেছে। উল্লেখ্য, ইতালিতে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্তের সংখ্যা প্রায় ৩২ লাখ।