প্রেমিককে কেটে ৫ খণ্ড, সেই প্রেমিকার বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ১২, ২০২১

রাজধানীতে মেয়েকে বিয়ে করতে চাওয়ায় সজীব হাসান (৩২) নামে এক প্রেমিককে কেটে ৫ খণ্ড করেছেন ৫০ বছর বয়সী প্রেমিকা শাহনাজ পারভীন। বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে সায়েদাবাদের কে এম দাস লেনের একটি ভাড়া বাসা থেকে উদ্ধার করা হয় প্রেমিক সজীবের পাঁচ খণ্ড করা মরদেহ। এ ঘটনায় প্রেমিকা শাহনাজকে আটক করেছে পুলিশ।

এরপর শুক্রবার (১২ ফেব্রুয়ারি) ওয়ারী থানা-পুলিশ প্রেমিকা শাহনাজ পারভীনকে আসামি করে মামলা করেছে। মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ওয়ারী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম।

এসআই সাইফুল বলেন, শাহনাজ হত্যার কথা স্বীকার করেছেন। এর পরও হত্যার সঙ্গে আর কেউ জড়িত আছে কিনা, তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

জানা গেছে, নিহত সজীব হাসান (৩২) শ্যামলী পরিবহনের কাউন্টার মাস্টার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তার গ্রামের বাড়ি ঝিনাইদহের শৈলকূপায়। বাড়িতে তার স্ত্রী ও সন্তান রয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, শাহনাজের সঙ্গে সজীবের পাঁচ বছর আগে সম্পর্ক হয়। তখন শাহনাজকে স্ত্রী পরিচয় দিয়ে সজীব কে এম দাস লেনের চতুর্থ তলায় বাসা ভাড়া নেন। শাহনাজের বাসাও একই এলাকায়। তখন থেকে সজীবের বাসায় নিয়মিত যেতেন। শাহনাজ সজীবের বাসায় বুটিকসের কাজ শিখছেন বলে তার স্বামীকে বলে যেতেন। তার স্বামী একজন ব্যবসায়ী। তার দুই ছেলে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন এবং একমাত্র মেয়ে কলেজে পড়েন।

পুলিশ আরো জানিয়েছে, সম্প্রতি শাহনাজের মেয়ের সঙ্গেও সম্পর্কে জড়ায় সজীব। এ অবস্থায় ১১ ফেব্রুয়ারি সকালে বাসায় এলে শাহনাজকে চাকু মারার চেষ্টা করে সজীব। এসময় শাহনাজ চাকু কেড়ে নিয়ে উল্টো সজীবের পেটে ঢুকিয়ে দেন। পরে মৃত্যু নিশ্চিত হলে মরদেহ ৫ টুকরো করেন শাহনাজ।

খুনের পর পালানোর কোনো চেষ্টাই করেনি শাহনাজ। ঘটনাস্থল থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য সজীবের লাশ মিটফোর্ড হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে জানায় পুলিশ।