সাউথ এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট কোম্পানির উত্তরায় অত্যাধুনিক ভবন নির্মাণ চুক্তিস্বাক্ষার

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ১৫, ২০২০

রাজধানীর উত্তরায় রাজউকের আওতাভুক্ত ১৪ নং সেক্টরে, আধুনিক মানের ৮ তলা ভবন নির্মাণের জন্য সাউথ এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট কোম্পানি ও জমির মালিক জাহানারা বেগমের মধ্য একটি চুক্তিস্বাক্ষর সম্পন্ন হয়েছে। সাউথ এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট কোম্পানির মোহাম্মদপুরস্থ প্রধান কার্যালয়ে এই চুক্তিস্বাক্ষার অনুষ্ঠিত হয়। উল্লেখ্য, আগামী ২ বছরের মধ্য জাহানারা বেগম কর্তৃক প্রদত্ত জমিতে একটি আধুনিক মানের ৮তলা ভবন নির্মণ করবে সাউথ এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট কোম্পানী। এ সময় সাউথ এশিয়ান হোল্ডিংস লিমিটেড ও সাউথ এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট কোম্পানির ব্যাবস্থাপনা পরিচারক এ. বি. এম কায়কোবাদ, নির্বাহী পরিচালক এম. এ হালিম, পরিচালক শাহাজান হাওলাদার, বিজনেস ডেভেলপমেন্ট ডাইরেক্টর এ. কে. এম আলম এবং জমির মালিক জাহানারা বেগমসহ অন্যান্য। এসময় কোম্পানির ব্যাবস্থাপনা পরিচালক এ. বি. এম কায়কোবাদ বলেন, ‘ আমরা খুবই আনন্দিত। আমরা বিগত ১০ বছর যাবৎ অত্যান্ত সুনামের সহিত আমাদের কায্য সম্পাদন করে আজকের দিন পর্যন্ত পৌঁছে গেছি। অত্যান্ত অল্প সময়ে এই পর্যন্ত সফলতার সাথে আসার পেছনে মূলধন আমাদের ওয়াদারক্ষা। সততার সহিত আমরা সবসময় আমাদের কাস্টমারদের দেওয়া ওয়াদারক্ষা করতে বদ্ধপরিকর। তারই ফলস্রুতিতে আজ আমাদের এই অগ্রসরতা। আমরা চায়, কতিপয় স্বার্থনেশী কোম্পানীর কারণে আজ ল্যান্ড কোম্পানির নামে মানুষে যে ভুল ধারণার জন্ম হয়েছে তার অবসান ঘটাতে। আমাদের মূল উদ্দেশ্য আপনার সেবা নিশ্চত করা এবং অবশ্যই আপনার সহিত চুক্তির সম্পূর্ণটাই পরিপূণ ভাবে বাস্তবায়ন করা। গুলশানের মদিনা সিটি, ধানমন্ডিতে ড্রিম ষ্টোন, গ্রীনরোডস্থ গ্রীনস্টার সহ আরও অনেক প্রজেক্ট যা আমাদের সফলতার ধারক। আমরা আশা করছি, আগামীতে দেশের নাম্বার ওয়ান ডেভেলপমেন্ট কোম্পানী গুলোর র্শীষে অবস্থান করবে এই সাউথ এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট কোম্পানী। আপনাদের সবার ভালোবাসা আর দোয়াই সেই লক্ষ্য নিয়েই এগিয়ে চলেছে আমাদের এই প্রতিষ্ঠান’। জমির মালিক জাহানারা বেগম বলেন,’ আমি এই প্রতিষ্ঠান সম্বন্ধে যথেষ্ঠ জেনে শুনে এরপর তাদের মাধ্যমে আমার বাড়ি নির্মাণ করতে সম্মত হই। তাদের বিগত কাজের সূত্রে তাদের দ্বায়িক্ত-কর্তব্য এবং তাদের সবথেকে বড় যে বিষয়টা সেটা হল চুক্তিমত কাজ করা মানে ওয়াদারক্ষা করা। তাই আমি আর কিছু না ভেবে তাদের সাথে কাজ করতে আগ্রহী হই’। আবাসন খাতের বিল্পবের দিনে সাউথ এশিয়ান ডেবল্পমেন্টের মতই হোক সকল ডেভেলপমেন্ট উদ্দেশ্য। তাহলে দেশের আবাশন খাতের মেরুদন্ড অক্ষুন্ন থাকবে বলে বিশ্বাস। না হলে প্রতারণা বা দূর্ণিতি জর্জরিত হলে অচিরেই এই সম্ভাবনাময় খাতেও চির ধরবে বলে ধারণা করা যায়। তাই এই খাতের উন্নয়নে সকল প্রতিষ্ঠানের মূলমন্ত্র হোক চুক্তি মোতাবেক কাজ সম্পূর্ণ করা। তাহলে অদূর ভবিষ্যৎতে এটাই হবে মানুষের আবাসনের মূল মাধ্যম।